বিএলডিএ ও রিহ্যাবের সুপারিশ পর্যালোচনায় কমিটি

ডিটেইল্ড এরিয়া প্ল্যান (ড্যাপ) বাস্তবায়নে রিহ্যাব ও বিএলডিএ’র প্রস্তাবিত মতামত ও সুপারিশসহ পর্যালোচনা করার জন্য একটি ওয়ার্কিং কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম।

 

গতকাল রোববার রাজধানীর একটি হোটেলে ড্যাপ বাস্তবায়নের বিষয়ে রিয়েল এস্টেট অ্যান্ড হাউজিং অ্যাসোসিয়েশন (রিহ্যাব) ও বাংলাদেশ ল্যান্ড ডেভেলপারস

অ্যাসোসিয়েশনের (বিএলডিএ) প্রতিনিধিদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন তিনি। মন্ত্রী জানান, ড্যাপ বাস্তবায়নে রিহ্যাব ও বিএলডিএ’র পক্ষ থেকে বেশ কিছু সুনির্দিষ্ট সুপারিশ ও মতামত তুলে ধরা হয়েছে। এসব মতামত ও সুপারিশ পর্যালোচনার জন্য গৃহায়ণ ও গণপূর্ত সচিবকে আহ্বায়ক করে একটি ওয়ার্কিং কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ কমিটি এসব সুপারিশ পর্যালোচনা করে সারসংক্ষেপ ড্যাপের আহ্বায়কের কাছে উপস্থাপন করবেন।

তিনি বলেন, এ দেশটা আমাদের সবার। ঢাকা শহরকে আধুনিক ও দৃষ্টিনন্দন করে বসবাস উপযোগী করার জন্য আমরা সবাই অঙ্গীকারাবদ্ধ। এখন ড্যাপের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সব পক্ষের মতামত নিয়েই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, বিভিন্ন সময়ে নগরীতে অপরিকল্পিতভাবে অবকাঠামো নির্মাণ করা হয়েছে। এতে অনেক সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। আর যাতে অপরিকল্পিতভাবে অবকাঠামো নির্মাণ না হয়, সেজন্য ড্যাপ বাস্তবায়ন জরুরি। আইন লঙ্ঘন করে কেউ কোনো কিছু করলে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রের আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও উল্লেখ করেন তিনি।

এর আগে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, যেখানে বহুতল ভবন নির্মাণের সুযোগ রয়েছে, সেখানে তা নির্মাণ করা হবে। আর যেখানে সব নাগরিক সেবা প্রদান করা সম্ভব না, সেখানে সুউচ্চ ভবন নির্মাণ করতে দেওয়া হবে না। মানুষ যদি চলাচলের জন্য রাস্তা না পায়, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবার সুযোগ না থাকে, ছেলেমেয়েদের খেলাধুলার মাঠ এবং ওয়াটার বডিসহ অন্যান্য সুযোগসুবিধা না থাকে তাহলে, সেখানে বড় বড় বিল্ডিং করা ঠিক হবে না। তাই সার্বিক দিক বিবেচনায় নিয়ে এক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত নিতে হবে।

সভায় স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ, গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. শহীদ উল্লাহ খন্দকার, রাজউকের চেয়ারম্যান ড. সাঈদ হাসান শিকদার, ড্যাপের প্রকল্প পরিচালক মো. আশরাফুল ইসলাম, বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান ও বিএলডিএ’র সভাপতি আহমেদ আকবর সোবহান এবং রিহ্যাবের সভাপতি আলমগীর শামসুল আলামিনসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

‘Body formed to review BLDA, REHAB recommendations’

The government has formed a working committee to review the opinions and recommendations of Bangladesh Land Developers Association (BLDA) and Real Estate and Housing Association of Bangladesh (REHAB) for implementation of the Detailed Area Plan (DAP) for the capital.

“A committee, headed by the secretary of the housing and public works ministry, has been formed to assess the opinions and recommendations of the BLDA and the REHAB,” Local Govern-ment, Rural Development and Cooperatives Minister Tazul Islam said on Sunday after a meeting with the representatives of the two bodies.

BLDA and REHAB representative are also the members of the committee, he added.
Senior secretary of LGRD Ministry Helaluddin Ahmed,

secretary of Housing and Public Works Ministry Md Shahid Ullah Khandaker, RAJUK chairman Sayeed Hasan Shikdar, Bashundhara Group Chairman and BLDA President Ahmed Akbar Sobhan and REHAB President Alamgir Shamsul Alamin, among others, attended the meeting at a city hotel.

A press release, quoting Tajul, also convener of the DAP Review Committee, said they are committed to resolving the problem of housing and making Dhaka a habitable city.

“But in the past, many establishments have been built in an unplanned way. We want to implement the DAP (2016-35) to avoid the unplanned development,” Tajul also said.

“Permissions for high-rise buildings will depend on the accessibility of civil amenities in an area. We won’t allow high rises in the places having poor accessibility of civic amenities,” he added.
Source:   Daily Sun

পঞ্চমবারের মতো সেরা করদাতা ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ

২০১৯-২০ করবর্ষের জন্য দেশের শীর্ষ সারির শিল্পপ্রতিষ্ঠান বসুন্ধরা গ্রুপের অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেড (ইডাব্লিউএমজিএল) আবারও সেরা করদাতা নির্বাচিত হয়েছে।

প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া ক্যাটাগরিতে ইস্ট ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ এবার পঞ্চমবারের মতো সেরা করদাতা প্রতিষ্ঠান নির্বাচিত হয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানের মালিকানাধীন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- কালের কণ্ঠ, বাংলাদেশ প্রতিদিন, ইংরেজি পত্রিকা ডেইলি সান, অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর ডটকম, নিউজ টোয়েন্টিফোর টেলিভিশন ও রেডিও ক্যাপিটাল। বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহান ও তাঁর পরিবার এর আগে করবাহাদুর পরিবার হিসেবে নির্বাচিত হয়।

যাচাই-বাছাই শেষে এনবিআর থেকে ট্যাক্স কার্ডপ্রাপ্তদের নামের তালিকা অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে এই তালিকা চূড়ান্ত অনুমোদনের পর প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে। অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

তালিকায় জাতীয় পর্যায়ে ১৪১ ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের নাম রয়েছে। ট্যাক্স কার্ডের মেয়াদ থাকবে এক বছর। কার্ডপ্রাপ্তরা বিভিন্ন ধরনের রাষ্ট্রীয় সুবিধা পাবেন। ট্যাক্স কার্ডধারীরা বিভিন্ন রাষ্ট্রীয় অনুষ্ঠানে আমন্ত্রণ পাবেন। সড়ক, বিমান, নদীপথে ভ্রমণে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে টিকিট পাবেন। হোটেল-রেস্তোরাঁয় অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সেবা পাবেন। বিমানবন্দরে ভিআইপি লাউঞ্জ ব্যবহারের সুযোগ পাবেন। চিকিৎসায় হাসপাতালে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে শয্যা সুবিধা পাবেন।

আসছে ফেব্রুয়ারিতে সেগুনবাগিচায় জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) সম্মেলনকক্ষে ‘ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা প্রদান’ অনুষ্ঠানে জাতীয় পর্যায়ের ৩৬ ক্যাটাগরির সেরা করদাতার (একজন) হাতে ট্যাক্স কার্ড, ক্রেস্ট ও সম্মাননা সনদ তুলে দেওয়ার কথা রয়েছে।

Source: বাংলাদেশ প্রতিদিন

‘বই পেলাম, লেখাপড়ার গতিও বেড়ে গেল’

বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানের উদ্যোগে এবং বসুন্ধরা নুডলসের সহযোগিতায় কালের কণ্ঠ শুভসংঘ গতকাল নীলফামারীর রামগঞ্জ কলেজের শিক্ষার্থীদের পাঠ্য বইসহ শিক্ষা উপকরণ দেয়।

‘এক মাস আগে দ্বাদশ শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হয়েছি। বাবা এখন পর্যন্ত বই কিনে দিতে পারেননি। আজ বই পেয়ে খুবই ভালো লাগছে।’ ক্লাসের নতুন বই-খাতা ও ব্যাগ পেয়ে এভাবেই উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে নীলফামারীর রামগঞ্জ কলেজের শিক্ষার্থী জহুরা আকতার। জহুরা ছাড়াও বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানের উদ্যোগে এবং বসুন্ধরা নুডলসের সহযোগিতায় কালের কণ্ঠ শুভসংঘের দেওয়া পাঠ্য বইসহ শিক্ষা উপকরণ পেয়ে এমন উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে আরো অনেক শিক্ষার্থী। গতকাল শনিবার নীলফামারীর প্রত্যন্ত অঞ্চলের রামগঞ্জ কলেজের ২৫০ শিক্ষার্থীর মধ্যে এসব বিতরণ করা হয়।

দুপুর ১২টার দিকে রামগঞ্জ কলেজ চত্বরে এ উপলক্ষে অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। বই পেয়ে কলেজের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী লিয়ন ইসলাম বলে, ‘বই না থাকায় থেমে যাচ্ছিল আমার লেখাপড়া। এখন বই পেলাম। লেখাপড়ার গতিও বেড়ে গেল। ধন্যবাদ জানাই কালের কণ্ঠ শুভসংঘ ও বসুন্ধরা নুডলসকে।’ সুলতানা রাজিয়া একাদশ শ্রেণিতে উত্তীর্ণ হয়েছে শুভসংঘের দেওয়া বই পেয়ে। ওই সহযোগিতা না পেলে হয়তো থেমে যেত তার লেখাপড়া। এবার দ্বিতীয় বর্ষের বই পেয়ে সে বলে, ‘কলেজের শিক্ষার্থীরা দরিদ্র পরিবারের। তাদের অনেকেই বিভিন্ন কাজ করে বই কেনার টাকা জোগাড় করে। এখন আর সেটি করতে হবে না।’

নীলফামারী জেলা শুভসংঘের আয়োজনে অনুষ্ঠানে মশিউর রহমান ডিগ্রি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ সরওয়ার মানিক, রামগঞ্জ কলেজের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সফিয়ার রহমান, বসুন্ধরা ফুড অ্যান্ড বেভারেজ ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের এরিয়া সেলস ম্যানেজার আব্দুল কাদের, নীলফামারীর জেলা প্রশাসক মো. হাফিজুর রহমান চৌধুরী, শুভসংঘের পরিচালক জাকারিয়া জামান, কালের কণ্ঠ’র রংপুর ব্যুরোপ্রধান স্বপন চৌধুরী, নীলফামারী প্রতিনিধি ভূবন রায় নিখিল, কেন্দ্রীয় শুভসংঘের যুগ্ম সম্পাদক সোহেল রানা স্বপ্ন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এ ছাড়া রংপুর ও নীলফামারী শুভসংঘের বন্ধুরা উপস্থিত ছিলেন। সভাপতিত্ব করেন নীলফামারী শুভসংঘের সভাপতি ও রামগঞ্জ কলেজের অধ্যক্ষ মো. আনোয়ার হোসেন।

এমন মহতী উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে জেলা প্রশাসক হাফিজুর রহমান চৌধুরী বলেন, ‘কালের কণ্ঠ শুভসংঘের এমন উদ্যোগ আলোর দুয়ার খুলে দেওয়ার কাজ করেছে। সে আলো একটি শিক্ষিত ও উন্নত জাতি গঠনে কাজ করবে।’

শিক্ষাবিদ সরওয়ার মানিক বলেন, ‘শিক্ষাজীবনে সফলতা আনতে শিক্ষার্থীদের পাঠ্য বই বড় একটি সম্বল। কালের কণ্ঠ শুভসংঘ শিক্ষার্থীদের সহায়তা করার যে মহতী উদ্যোগ নিয়েছে, সেটি অব্যাহত রাখার আহ্বান জানাচ্ছি।’

হতদরিদ্র পরিবারের শিক্ষার্থীদের হাতে বই তুলে দেওয়াকে ব্যতিক্রমী ঘটনা হিসেবে উল্লেখ করে তিনি কালের কণ্ঠ সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন ও বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আহমেদ আকবর সোবহানের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন।

Source:  কালের কণ্ঠ

Bashundhara Group Chairman greeted with floral bouquet

Bashundhara Group Chairman Ahmed Akbar Sobhan was greeted with floral bouquet by the newly elected chairman of Daudpur Union Parishad under Rupganj upazila of Narayanganj Nurul Islam Jahangir Master.

The event took place in Bashundhara Chairman’s residence at Bashundhara Residential Area in Baridhara of the capital.

Rafiqul Islam, Chairman of Rongdhanu Group and Kayetpara Union Parishad, was also present on the occasion.

Bashundhara Group Chairman mourns Rafique-ul-Huq’s death

Bashundhara Group Chairman Ahmed Akbar Sobhan has mourned the death of renowned lawyer and former attorney general Barrister Rafique-ul-Huq.

In a message, the Bashundhara Group Chairman on Saturday expressed deep shock and sorrow at the demise of the eminent jurist of the country.

Ahmed Akbar Sobhan prayed for the eternal salvation of the departed soul and expressed sympathy to the bereaved family members.

Barrister Rafique breathed his last at 8:30 in the morning while undergoing treatment at ICU in Ad-Deen Hospital in the capital. He was 85.

বসুন্ধরায় হচ্ছে বিচারকদের আবাসন প্রকল্প

বিচার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের দীর্ঘদিনের আকাঙ্খার আবাসন প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে দেশের শীর্ষস্থানীয় শিল্পগোষ্ঠী বসুন্ধরা গ্রুপ। বৃহস্পতিবার এ বিষয়ে একটি চুক্তি সই হয়ছে।

জানা গেছে, বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় প্রস্তুত হচ্ছে বাংলাদেশ জুডিসিয়াল অফির্সাস হাউজিং প্রকল্প। এই প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিসে কর্মরত বিচারকগণের আবাসন ও পারিবারিক নিরাপত্তা নিশ্চিত হবে।

জানা গেছে, বিচারকদের আবাসন প্রকল্প গ্রহণের লক্ষ্যে সব রকমের সহযোগিতা ও অনুপ্রেরণা দিয়েছেন আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক এমপি।
রাজধানীর খিলক্ষেত থানাধীন ৩০০ ফিট কুড়িল-পূর্বাচল রাস্তার উত্তরে বিসিএস (প্রশাসন) সার্ভিসের আবাসন প্রকল্প সংলগ্ন ৪২৭২ কাঠা (কম/বেশি) ভূমিতে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

এ উপলক্ষে জুডিসিয়াল অফিসার্স বহুমুখী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সঙ্গে বসুন্ধরা গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান মেসার্স ইস্টওয়েস্ট প্রপার্টি ডেভেলপমেন্ট (প্রা.) লিমিটেডের রেজিস্ট্রি চুক্তি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যানের বাস ভবনে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের পক্ষে চুক্তিতে সই করেন বসুন্ধরা গ্রুপের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব আহমেদ আকবর সোবহান এবং বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি, ঢাকা জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ শওকত আলী চৌধুরী এবং সংগঠনের মহাসচিব, আইন বিচার বিভাগের যুগ্ম-সচিব (প্রশাসন-১) বিকাশ কুমার সাহা।

এ সময় আইন ও বিচার বিভাগের সচিব মো. গোলাম সারওয়ারসহ বাংলাদেশ জুডিসিয়াল সার্ভিস অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, আবাসন প্রকল্পের প্লট নির্মাণের জন্য নির্ধারিত ভূমির পরিমাণ হবে ৩২৮৮ কাঠা (কম/বেশি) এবং বেসরকারি হাউজিং নীতিমালা অনুযায়ী রাস্তা, ড্রেন, স্কুল, শপিং সেন্টার, খেলার মাঠ, বিনোদন কেন্দ্র ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানসহ নাগরিক সুবিধার জন্য নির্ধারিত ভূমির পরিমান হবে ৯৮৪ কাঠা (কম/বেশি)। এতে ৩৩৩টি (কম/বেশি) ০৫ কাঠা আয়তনের এবং ৫৪১টি (কম/বেশি) ০৩ কাঠা আয়তনের সর্বমোট ৮৭৪টি প্লট থাকবে। প্রকল্পে সর্বমোট ১১৪০ জন বিচারকের আবাসন ব্যবস্থা থাকবে।

Bashundhara Group to provide support for Army’s Jolshiri Project

Bashundhara Group, a leading industrial conglomerate in the country, will provide its overall support for the development work of Bangladesh Army’s Jolshiri Abashon Project in the capital.

To this effect, an agreement was signed at the Army Headquarters in Dhaka Cantonment on Monday.

Jolshiri Abashon Project Chairman Maj Gen Md Abu Sayed Siddique and Bashundhara Group Chairman Ahmed Akbar Sobhan signed the agreement on behalf of their respective sides in the presence of Army Chief General Aziz Ahmed.
Bashundhara Group has already provided 2,600 bighas of land, considering the priority of Prime Minister Sheikh Hasina to make this project a success.

It was said at the function that Bashundhara Group will assist in the expansion and development of Jolshiri Abashon Project.

Bashundhara Group and Jolshiri will jointly set up a large mosque in the project area and will also work for beautification of the project.

Addressing the signing ceremony, Bashundhara Group Chairman Ahmed Akbar Sobhan said: “We are happy to provide support on behalf of Bashundhara Group for the expansion and development of Bangladesh Army’s Jolshiri Abashon Project.”

“I hope that implementation of this project will be completed within the stipulated time in collaboration with both the parties,” he added.

Speaking on the occasion, Army Chief General Aziz Ahmed said the Army and Bashundhara Group will cooperate in the implementation of the projects.
He has commended Bashundhara Group for its overall support for the implementation of this project and especially thanked Bashundhara Group Chairman Ahmed Akbar Sobhan.

Quarter Master General of Bangladesh Army Lieutenant General Md Shamsul Haque, Bashundhara Group Managing Director Sayem Sobhan Anvir, Bashundhara Group Vice-Chairman Safwan Sobhan Tasvir, Bashundhara Group Senior Executive Director Liakat Hossain, Rongdhanu Group Chairman Rafiqul Islam Rafiq and senior officials from both sides were present at the function.

Bashundhara Group chairman condoles death of Sahara Khatun

Bashundhara Group Chairman Ahmed Akbar Sobhan has expressed profound shock at the death of Awami League (AL) Presidium Member and former Home Minister Advocate Sahara Khatun MP, who passed away at Bumrungrad International Hospital in Bangkok, Thailand on Thursday night.

In a condolence message, Ahmed Akbar Sobhan said the country lost an honest and sincere politician. Her death is an irreparable loss to the country’s political arena. People will remember her contributions with due respect for long.

“I express my deep sympathy to the members of the bereaved family and pray to the Almighty Allah to give them strength to bear this irreparable loss and for the salvation of the departed soul,” he added.
Sahara Khatun passed away at 11:25pm (local time) at Bumrungrad International Hospital in Bangkok.

Earlier on Monday, Advocate Sahara Khatun was flown to Thailand for better treatment.

The lawmaker of Dhaka-18 constituency was released from Dhaka’s United Hospital around 11:20 in the morning on the same day.

On June 2, she had been admitted to United Hospital in the capital’s Gulshan area with allergy, fever and cold-related complications. Later she was shifted to the ICU on June 19 as her condition deteriorated.

Advocate Sahara Khatun was elected as lawmaker three times from Dhaka-18 constituency.

Bashundhara Group Chairman mourns Abdul Monem Group’s founder death

Bashundhara Group Chairman Ahmed Akbar Sobhan expressed his profound shock at the sad demise of Abdul Monem Group’s founder Abdul Monem Khan.

In a condolence message, he also prayed for salvation of the departed soul and expressed deep sympathy to the bereaved members of his family.
Abdul Monem breathed his last while undergoing treatment at at Combined Military Hospital (CMH) in Dhaka on Sunday noon.

A veteran civil engineer by profession Abdul Monem masterminded the AML Business, its expansion and growth horizontal integration and diversification.

For his achievement in this respect, he was awarded ‘Commercially Important Person (CIP)’ status by the Government of Bangladesh several times.